চাকরির ভাইভা প্রস্তুতি এর জন্য ১০ টি কায্যকারি টিপস

5/5 - (1 vote)

চাকরির ভাইভা বা ইন্টারভিউ হলো চাকরি পাওয়ার ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ ধাপ। এরপর আপনার কাজ হলো ভাইভা বোর্ডে আপনার দক্ষতা, আপনার অভিজ্ঞতা, এবং ব্যক্তিত্ব তুলে ধারার মাধ্যমে নিজেকে উপস্থাপন করা পরবর্তিতে নিয়োগকর্তা মূল্যায়ন করেন এবং আপনি তাদের প্রতিষ্ঠানের জন্য কতটা উপযুক্ত। এজন্য ভাইভায় ভালোভাবে পারফর্ম করা একটি চাকরির জন্য অপরিহার্য।

আজকের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আমরা আপনাকে জানাবো চাকরির ভাইভায় সাফল্যের জন্য ১০টি গুরুত্বপূর্ণ টিপস সম্পর্কে।

আশকরি আজকের এই টিপসগুলো অনুসরণ করার মাধ্যমে আপনি আপনার ভাইভা অর্থাৎ ইন্টারভিউ দেওয়ার জন্য ভালোভাবে প্রস্তুতি নিতে পারবেন এবং সাফল্য অর্জন করতে পারবেন।

১। প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে ভালোভাবে জানুন

ভাইভা দিতে যাওয়ার আগে সেই প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে ভালোভাবে খোঁজ খবর নিন এবং জানার চেষ্ঠা করুন তারা কিভাবে কাজ করে, কোথায় কোথায় তারা মার্কেটিং করে, ইত্যাদি সব খুটিনাটি বিষয় জানার চেষ্টা করুন যতটা জেনে নেওয়া যায় জেনে নিতে হবে।

ইন্টারভিউতে তারা তাদের প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে যদি প্রশ্ন করে যে, আপনি আমাদের প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে কতটুকু জানেন বলুন?

অনেক সময় এধরনের প্রশ্ন করা হয়ে থাকে প্রার্থীদেরকে। এ ধরনের প্রশ্ন করলে আপনি যেনো কিছু হলেও তাদের প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে বলতে পারেন।

এতে করে নিয়গকর্তাদের মনে ইতিবাচক প্রভাব বিস্তার করতে পারবেন। এর দ্বারা তারা বুঝে নিবে যে, আপনি তাদের প্রতিষ্ঠানে চাকরি করার জন্য সত্যিই খুব আগ্রহী। এতে করে চাকরি পাওয়ার সম্ভাবনা অনেকাংশে বেড়ে যায়।

২। আপনার দক্ষতা এবং অভিজ্ঞতা প্রদর্শন করুন

ভাইভার সময় তাদের প্রশ্নর উত্তরে আপনার দক্ষতা এবং অভিজ্ঞতা প্রদর্শন করতে পিচুপা হবেনা। কারন, বর্তমান সময়ে প্রায় কমবেশি প্রতিটা প্রতিষ্ঠান যোগ্যতার চেয়ে অভিজ্ঞতাকে বেশি প্রাধান্য দিয়ে থাকেন।

কারণ একজন অনভিজ্ঞ ব্যক্তিকে চাকরি দেয়ার পর সেই ব্যক্তিকে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ধরে ধরে শেখানোর সেই ব্যক্তি অভিজ্ঞতা অর্জনের পর যদি উক্ত প্রতিষ্ঠান থেকে ছেড়ে চলে যান এতে করে সেই অবস্থানের ঘার্তির কাথা ভেবে কোনো কোম্পানি কখনোই এই রিক্স নিতে চান না।

এর জন্য তারা সর্বদা দক্ষ এবং অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ব্যক্তিদের খুঁজে থাকেন তাদের প্রতিষ্ঠানের জন্য।

৩। আপনার ব্যক্তিত্ব প্রদর্শন করুন

ভাইভার সময় আপনার ব্যক্তিত্ব প্রদর্শন করুন। এতে করে নিয়োগকর্তা বুঝতে পারবেন যে আপনি একজন সৎ এবং ভালো মানুষ এবং কোম্পানির জন্য উপযুক্ত ব্যক্তি।

এক্ষেত্রে আপনার ব্যক্তিত্ব প্রদর্শন করার জন্য আপনি আপনার আগ্রহ, লক্ষ্য, এবং মূল্যবোধ তাদের সামনে উল্লেখ করতে পারেন।

৪। ভালো পোশাক পরিধান করুন

ভাইভা দিতে যাওয়ার সময় ভালো পোশাক পরিধান করুন, এতে আপনি নিয়োগকর্তার কাছে ইতিবাচক ছাপ ফেলতে পারবেন। সাধারণত শার্ট, প্যান্ট, এবং কোট পরাই ভালো।

৫। সঠিক সময়ে উপস্থিত হন

ভাইভার জন্য সঠিক সময়ে সঠিক স্থানে উপস্থিত হন। এতে আপনি নিয়োগকর্তার কাছে একজন পেশাদার হিসেবে উপনিত হতে পারবেন। অতএব ভাইভার জন্য কমপক্ষে ৩০ মিনিট আগে উপস্থিত হওয়া ভালো।

৬। আত্মবিশ্বাসী হোন

ভাইভার সময় আত্মবিশ্বাসী হোন। এতে আপনি চাকরির নিয়োগ কর্তার কাছে একজন যোগ্য প্রার্থী হিসেবে দেখাতে পারবেন। আত্মবিশ্বাসী হওয়ার জন্য আপনাকে অনুশীলন করতে হবে এবং নিজেকে বিশ্বাস করতে হবে।

৭। প্রশ্নের উত্তর সঠিকভাবে দিন

ভাইভার সময় প্রশ্নের উত্তর গুলো সঠিকভাবে দিন। এতে নিয়োগকর্তা বুঝতে পারবেন যে তাদের প্রতিষ্ঠানের জন্য আপনি একজন যোগ্য প্রার্থী। প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার সময় ধীরস্থিরভাবে কথা বলুন এবং আপনার উত্তর সাবলিল ভাষায় পরিষ্কারভাবে ব্যাখ্যা করুন এবং আঞ্চলিক ভাষা বর্জন করুন।

৮। নিয়োগকর্তার সাথে Eye Contact করুন

ভাইভার সময় নিয়োগকর্তার সাথে কথা বলার সময় চোখে চোখ রেখে কথা বলার চেষ্টা করুন। এতে করে আপনি ভালো যোগাযোগ করতে পারবেন। Eye Contact করার সময় তাদের চোখের দিকে তাকান এবং তাদের কথার সাথে Eye Contact মেলান।

৯। নিয়োগকর্তাকে প্রশ্ন করুন

ভাইভার শেষে আপনি নিয়োগকর্তার কাছে প্রশ্ন করতে পারেন। এতোক্ষন পযন্ত আপনাদের মাঝে যা কথা হলো এমন কোনো পয়েন্ট মনে রাখুন যা দ্বারা পরবর্তিতে আপনি প্রশ্ন করতে পারেন।

এক্ষেত্রে মনে রখাতে হবে কখনই যেনো অহেতুক প্রশ্ন করা না হয়। এর থেকে সতর্ক থাকবেন। প্রশ্ন করার সময় নিয়োগকর্তার কোম্পানি, চাকরির অবস্থান, এবং কাজের দায়িত্ব সম্পর্কে প্রশ্ন করা যেতে পারে।

১০। নিয়োগকর্তাকে ধন্যবাদ জানান

ভাইভা শেষে নিয়োগকর্তাকে ধন্যবাদ জানান। এতে আপনি নিয়োগকর্তার কাছে পেশাদার হিসেবে উপস্থিত করতে পারবেন। অবশ্যই ধন্যবাদ জানানোর সময় আপনার নাম এবং যোগাযোগের তথ্য উল্লেখ করুন।

উপসংহার

উপরোক্ত এই টিপসগুলো অনুসরণ করে আপনি আপনার চাকরির ভাইভার জন্য ভালোভাবে প্রস্তুতি নিতে পারবেন এবং সাফল্য অর্জনে সবার থেকে অনেক দুরে এগিয়ে থাকতে পারবেন।

Leave a Comment